মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

আমাদের অর্জনসমূহ

বাংলাদেশ শিশু একাডেমী শিশুদের শারীরিক, মানসিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিভা বিকাশের লক্ষে  : শিশু বিকাশ কেন্দ্র, প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা, সঙ্গীত, নৃত্য, চিত্রাঙ্কন ও আবৃত্তি প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবস পালন করে থাকে। এই সমস্ত দিবসে শিশুদের জন্য বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।  এই সমস্ত প্রতিযোগিতায় বৎসরে প্রায় ৮০০০ জন শিশু অংশগ্রহণের সুয়োগ পায়।
 
১। বিগত ৫ বছরে শিশু উন্নয়ন কর্মসূচির চিত্র :
 
শিশুরাই আমাদের ভবিষ্যত কর্ণধার। তাদের সুষ্ঠ ও সুন্দর ভাবে বেড়ে ওঠা নিশ্চিত করার অর্থই হচ্ছে দেশের উন্নয়ন। জাতি, ধর্ম, বর্ণ, ধনী-গরীব নির্বিশেষে সকল শিশুর ভেতর  লুকায়িত পূর্ণ সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন করতে ও তাদের সুকুমারবৃত্তির চর্চাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে এবং তাদের শারীরিক, মানসিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিভা বিকাশের লক্ষে বাংলাদেশ শিশু একাডেমী নিরলসভাবে কাজ করে চলেছে।
 
(ক) শিশু বিকাশ ও প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা প্রদান :
বাংলাদেশ শিশু একাডেমী শিশুদের শারীরিক ও মানসিক প্রতিভা বিকাশের লক্ষে এবং শিশুদের স্কুলমুখী করণের উদ্দেশ্যে প্রতি বছর ৪-৫ বছর বয়সের সুবিধাবঞ্চিত, দরিদ্র ও হতদরিদ্র ৬০ জন শিশুকে শিশু বিকাশ ও প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা প্রদান করে থাকে। এই হিসাবে বিগত ৫ বছরে ৩০০ জন শিশুকে প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা প্রদান করা হয়েছে।
 
(খ) শিশু সাংস্কৃতিক প্রশিক্ষণ : 
শিশুদের সাংস্কৃতিক প্রতিভা বিকাশের লক্ষে বাংলাদেশ শিশু একাডেমী, পাবনা জেলা শাখা প্রতি বছর ১০০Ñ১৫০ জন শিশুকে সঙ্গীত, নৃত্য, চিত্রাঙ্কন ও আবৃত্তি বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করে থাকে। এই হিসাব অনুযায়ী বিগত ৫ বছরে ৭৫০ জন শিশুকে সা্স্কংৃতিক প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।
(গ) শিশু লাইব্রেরী কার্যক্রম :
শিশুদের মধ্যে পাঠ অভ্যাস গড়ে তোলার লক্ষে বাংলাদেশ শিশু একাডেমীতে একটি শিশু লাইব্রেরী রয়েছে। লাইব্রেরীতে শিশু উপযোগী গল্প, কবিতা, ছড়া, উপন্যাস, মণীষীদের জীবনী ইত্যাদি বই রয়েছে। লাইব্রেরীতে এসে প্রতিদিন ২০-২৫ জন শিশু বই পড়ছে। এই হিসাব অনুযায়ী বিগত ৫ বছরে প্রায় ৪৫,০০০ জন শিশু লাইব্রেরীতে বই পড়ার সুযোগ পেয়েছে।

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter